» নিউজিল্যান্ড ম্যাচেও ভালো হবে আশা মাশরাফির

Published: 03. Jun. 2019 | Monday

ঢাকা: বাংলাদেশি সমর্থকদের দাপটে রোববার দিনভর গমগম করেছে দ্য ওভাল। মনে হয়েছে খেলা ইংল্যান্ডের মাটিতে নয়, হচ্ছে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। অবশ্য গ্যালারির সমর্থকদের হতাশ হতে হয়নি। ‍বাংলাদেশ দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২১ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপে স্বপ্নের শুরু পেয়েছে।

মাশরাফি বিন মুর্তজা ম্যাচ শেষে সমর্থকদের কথা বললেন। ভুললেন না, দেশের সমর্থকদের কথাও। বিশেষ ধন্যবাদ জানালেন। আয়ারল্যান্ড থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস যে দারুন কাজে দিয়েছে সে কথা শুরুতেই বললেন মাশরাফি,‘ জয় দিয়ে শুরু করাটা সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। আয়ারল্যান্ডে আমরা খুব ভালো একটা সফর কাটিয়ে এসেছে। সেই রেশটা ধরে রাখার দরকার ছিল। ব্যাটসম্যানরা সেই ছন্দটা ধরে রেখেই শুরুটা এনে দিয়েছিল।’

বাংলাদেশ আগে ব্যাট করে তোলে ৩৩০ রান। বিশ্বকাপের মতো আসরে ‍নিজেদের সর্বোচ্চ স্কোরটা নতুন করে লেখানোটা দারুন কিছু। মাশরাফি বললেন, ‘টস জিতে ব্যাটিং পাওয়াটাও দারুণ কাজে লেগেছে। অবশ্য এটা এমন একটা উইকেট, এর আগে এখানে একটা ম্যাচ হয়ে গেছে। তাই টস জিতলেও দ্বিধা কাজ করেছে। ব্যাটিং নেব নাকি বোলিং। সব মিলিয়ে ব্যাটিং করাটা খারাপ সিদ্ধান্ত হয়নি। মুশফিক তো সব সময়ই এমন ইনিংস খেলে দেয়, যেখানে ওর স্ট্রাইক রেট খুব উঁচুতে থাকে। সাকিবও কী দারুণ ব্যাটিং করেছে। তবে বিশেষ করে সৌম্যের কথা বলতেই হবে। শুরুতে সৌম্য যে ছন্দটা ঠিক করে দিয়েছিল, সেটাই মাহমুদউল্লাহ-মোসাদ্দেক মিলে শেষ টেনেছে।’

মাশরাফি এদিন বোলারদের ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ব্যবহার করছিলেন। যেটা ধারাভাষ্যকারদের কাছ থেকে দারুন প্রশংসা কুড়িয়েছে। এই নিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘এই স্কোর গড়েও নির্ভার থাকার উপায় ছিল না। আমরা জানতাম আমাদের ভালো জায়গায় বোলিং করতে হবে। কারণ এটা ব্যাটিংয়ের জন্য খুব ভালো একটা উইকেট ছিল। তাই একের পর এক বোলারকে আক্রমণে পরিবর্তন করেছি, যেন ঠিক সময়ে উইকেট তুলে নিতে পারি। ভালো দিক হলো, পরিকল্পনাটা কাজে দিয়েছে। ঠিক সময়ে আমরা উইকেট তুলে নিতে পেরেছি। এখানেও স্পিনারদের কৃতিত্ব আছে। ওরাই চাপটা তৈরি করে দিয়েছিল। মোস্তাফিজ আর সাইফ শেষটা টেনে দিয়েছে।’

দুই দিন বিরতি দিয়েই বাংলাদেশ আবার নেমে পড়বে মাঠে। ওভালেই বাংলাদেশ পরের ম্যাচটা খেলবে, ৫ জুন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেই ম্যাচেও এমন সমর্থন চায় বাংলাদেশ, ‘দর্শক আজ আমাদের সঙ্গে সব সময় ছিল। বাংলাদেশের সব সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। আশা করি আমাদের বাকি ম্যাচগুলোতেও এভাবে মাঠে এসে সমর্থন দিয়ে যাবে। আর দেশে যারা টিভিতে খেলা দেখছিলেন, তারাও প্রত্যাশা করেছিলেন আমরা জিতব। আশা করি তাদের জন্য আরও একটা জয় এনে দিতে পারব। নিউজিল্যান্ড ম্যাচটাও ভালো হবে।’