| শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় ডগ স্কোয়াড -

» শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় ডগ স্কোয়াড

Published: 08. Jul. 2019 | Monday

শান্ত আহমেদ, স্পেশাল করসপনডেন্ট : দীর্ঘ প্রশিক্ষণের পর এবার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় শিগগিরই মাঠে নামছে ইংল্যান্ড থেকে আমদানি করা ডগ স্কোয়াড। এ ডগ স্কোয়াড বিমানবন্দরে প্রবেশ-বাহির পথে তল্লাশি ছাড়াও মাদক-বিস্ফোরক শনাক্তে বিশেষভাবে কাজ করবে। যদিও পরীক্ষামূলকভাবে এরই মধ্যে মাঠে নেমেছে আট সদস্যের ডগ স্কোয়াড৷

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ ডগ স্কোয়াড যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নিরাপত্তা স্ট্যান্ডার্ডে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলো। এতে করে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ঘাটতি পূরণ হবে মনে করছেন তারা।

আর্মড পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, এসব ডগ অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। কারও শরীর অথবা ব্যাগে মাদক কিংবা বিস্ফোরক থাকলে সঙ্গে সঙ্গে ঘ্রাণ শক্তি ব্যবহার করে শনাক্ত করতে সক্ষম।
বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ জানিয়েছে, ইংল্যান্ড থেকে আমদানি করা জার্মান শেফার্ড ও ল্যাব্রাডর এবং বেলজিয়াম মেলানিয়াস জাতের আটটি ডগকে আমেরিকান দূতাবাসের সহযোগিতায় দীর্ঘ দেড় বছর ধরে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এ ডগ স্কোয়ার্ডের টিমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে আর্মড পুলিশের ১৮ সদস্যকেও। যাদের বলা হয় ডগ হ্যান্ডলার।

জানা গেছে, শিগগিরই এ ডগ স্কোয়ার্ডের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে। এছাড়া আরও আটটি ডগ এ স্কোয়ার্ডে যুক্ত হবে। ১৬টি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডগ ও ১৮জন ডগ হ্যান্ডলার দিয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।
একজন কর্মকর্তার সার্বিক তত্ত্বাবধানে বিমানবন্দরেই ডগের থাকার ঘর তৈরি করা হয়েছে। এখানে ডগ হ্যান্ডলারদের ব্যারাক তৈরির কাজ চলছে। এছাড়া ডগের খাবার তৈরির জন্য একজন বিশেষ সেফও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপারেশন্স অ্যান্ড মিডিয়া) আলমগীর হোসেন বলেন, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বহুমাত্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও সরঞ্জাম কেনা সময়ের দাবি। সেই ক্ষেত্রে ডগ স্কোয়াডের সংযোজন বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বাড়াবে বলে মনে করি।

এর আগে গত ১৮ জুন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অধিকতর নিরাপত্তার জন্য সব বিমানবন্দরে ডগ স্কোয়াড গঠনের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্প অনুমোদনের সময় তিনি এ নির্দেশনা দেন।

সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, কুকুরের ঘ্রাণশক্তি অত্যন্ত প্রখর। পৃথিবীর অনেক দেশের বিমানবন্দরেই ডগ স্কোয়াড থাকে। বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তার জন্যেও ডগ স্কোয়াড গঠন করতে হবে।