| ছাত্রদলের দুই শীর্ষ নেতার বয়স কত জানেন? -

» ছাত্রদলের দুই শীর্ষ নেতার বয়স কত জানেন?

Published: 20. Sep. 2019 | Friday

ঢাকা: নানা নাটকীয়তা শেষে দীর্ঘ ২৭ বছর পর সরাসরি ভোটে নতুন নেতৃত্ব পেয়েছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। কাউন্সিলরদের ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ইকবাল হোসেন শ্যামল।

তারা দুজনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিনের সিন্ডিকেট ভেঙে কাউন্সিলররা নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করেন। সরাসরি ভোটে নেতা নির্বাচিত হওয়ায় সবাই ফলাফল মেনে নিয়েছেন, দেখা যায়নি কোনো বাদ-প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ।

ছাত্রদলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে ৯ জন সভাপতি প্রার্থী এবং ১৯ জন সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীর মধ্য থেকে এই দুজনকে বেছে নিয়েছেন কাউন্সিলররা। সারা দেশে ছাত্রদলের ১১৭টি সাংগঠনিক শাখার ৫৩৪ কাউন্সিলরের মধ্যে ৪৮১ জন ভোটাভুটিতে অংশ নেন।

হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে সভাপতি হয়েছেন খোকন। তিনি পেয়েছেন ১৮৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণের ভোট ১৭৮।

সাধারণ সম্পাদক পদে বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছেন শ্যামল। তিনি পেয়েছেন ১৩৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাকিরুল ইসলাম পেয়েছেন ৭৪ ভোট।

ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচনে ‘বয়স’ একটি ফ্যাক্টর। প্রায় প্রতিবারই বয়স্কদের মূল নেতৃত্বে আনা হয়। ‘আদু’ ভাইরা নেতৃত্ব আসায় গতবার ডাকসু (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ) নির্বাচনে তৎকালীন কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান কেউ ভোট করতে পারেননি। কেন্দ্রীয় কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে যারা ছিলেন তাদের কারো বয়সই ত্রিশের নিচে ছিল না। এ কারণে ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। নড়েচড়ে উঠে বিএনপির হাইকমান্ড। গঠনতন্ত্র সংশোধন করে যোগ করা হয় বয়সসীমা।

এরই ধারাবাহিকতায় এবারের কাউন্সিলে বয়স্করা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ হারান। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ-ভাংচুরও করেছেন ছাত্রদলের ‘আদু ভাইয়েরা’। কিন্তু বিএনপির হাইকমান্ড বয়সসীমার বিষয়ে অনঢ় থাকেন।

তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে ছাত্রদল যে নেতৃত্ব পেয়েছে তাদের বয়স নিয়ে অনেকেই কৌতুহলী। অনেকেই প্রশ্ন করছেন ছাত্রদল কি আদুভাইদের খপ্পর থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছে।

ছাত্রদলের শীর্ষ পদে নির্বাচিত হওয়া খোকন ও শ্যামলের বয়স সম্পর্কে জানা যায় তাদের জীবনবৃত্তান্তে।

ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকনের জন্ম ১৯৮৪ সালের ১০ জুন। সে হিসাবে তার বয়স ৩৫ বছরের বেশি। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০০৮ সালে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে অনার্স এবং ২০১০ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন তিনি। বর্তমানে একই বিশ্ববিদ্যালয়ে জাপানিজ স্ট্যাডিজে অধ্যায়নরত।

তিনি ছাত্রদলের সবশেষ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন।

অন্যদিকে ছাত্রলদলের নতুন নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল সভাপতি খোকনের চেয়ে ৪ বছরের ছোট। শ্যামলের জন্ম ১৯৮৮ সালের ১৫ এপ্রিল। সে হিসাবে তার বয়স ৩১ বছরের বেশি।

শ্যামল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে ২০০৯ সালে অনার্স এবং ২০১০ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। বর্তমানে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনায় অধ্যয়নরত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয় ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন শ্যামল।